Home উৎসব শ্রীরামপুরেপ্রাচীনতম মাহেশের রথযাত্রা দেখতে এসেছিলেন বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর...

শ্রীরামপুরেপ্রাচীনতম মাহেশের রথযাত্রা দেখতে এসেছিলেন বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর…

ভারতের প্রাচীতম উৎসবের মধ্যে রথযাত্রা অন্যতম। ভারতের দ্বিতীয় প্রাচীনতম রথযাত্রা উৎসব পালিত হয় শ্রীরামপুর মাহেশে (ভারতের প্রথম প্রাচীনতম রথযাত্রা পুরীর রথযাত্রা)। ১৩৯৬ খ্রিস্টাব্দ থেকে এই উৎসব অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে।



পশ্চিমবঙ্গের শ্রীরামপুর এ এই মাহেশের রথযাত্রা পালিত হয়। মাহেশের রথযাত্রায় ১ মাস ধরে মেলা বসে। বিভিন্ন প্রান্ত থেকে মানুষজনের ভিড় জমে রথের দিন। সোজা রথের দিন জগন্নাথের প্রধান মন্দির থেকে জগন্নাথ, বলরাম, সুভদ্রা কে নিয়ে মাসির বাড়ি রওনা দেয়, এবং উল্টো রথের দিন অর্থাৎ আটদিন পর আবার জগন্নাথের মূল মন্দিরে ফিরিয়ে আনা হয়।



হুগলী জেলার মাহেশের রথযাত্রার পিছনে লুকিয়ে আছে একটি কিংবদন্তি। প্রচলিত আছে ধ্রুবানন্দ ব্রহ্মচারী নামে এক সাধক পুরীতে তীর্থ করতে যান। তার মনের কামনা ছিল তিনি নিজের হাতে ভোগ তৈরি করে জগন্নাথ দেবকে খাওয়াবেন, কিন্তু খাবার মন্দিরে নিয়ে যাওয়ার সময় পান্ডাদের বাধা পেয়ে তিনি আর জগন্নাথ দেবকে ভোগ পরিবেশন করতে পারলেন না, সেই দুঃখে তিনি অনশনে বসলেন। ৩ দিন পর তিনি জগন্নাথ দেবের স্বপ্নাদেশ পেলেন। জগন্নাথ দেব তাকে আদেশ দিলেন “ধ্রুবানন্দ তুমি তোমার নিজ বঙ্গ দেশে ফিরে যাও, সেখানে ভাগীরথী নদীর তীরে মাহেশে আমার মন্দির প্রতিষ্ঠা করো।



আমি তোমাকে নিম গাছের ডাল পাঠিয়ে দেবো সেই নিমগাছের কাঠ দিয়ে তুমি বলরাম, সুভদ্রা এবং আমার মূর্তি গড়ে তোলো”। এই স্বপ্নাদেশ পেয়ে ধ্রুবানন্দ সাধনা শুরু করেন, এবং হঠাৎ এক বর্ষার দিন ভাগীরথী নদী দিয়ে একটি নিমডাল ভেসে আসে। জগন্নাথ দেবের কথা মত সেই নিমডাল ধ্রুবানন্দ জগন্নাথ, বলরাম, সুভদ্রার মূর্তি তৈরি করে মন্দিরে প্রতিষ্ঠা করেন।



এরপর ১৭৫৫ নয়নচাঁদ মল্লিক (কলকাতার) মাহেশে জগন্নাথদেবের মন্দির প্রতিষ্ঠা করেন। এই মন্দির প্রায় ১২৯ বছরের পুরনো। যা এক ঐতিহ্য বহন করে আসছে। সেই সময় কলকাতার শ্যামবাজারের বসু পরিবারের সদস্য কৃষ্ণচন্দ্র বসু প্রায় ২০ হাজার টাকা খরচা করে রথটি তৈরি করিয়ে দিয়েছিলেন। মা রথে ১২ টি লোহার চাকা এবং ৫০ ফুট উচ্চতা সম্পন্ন দুটি ঘোড়া আছে।



সবচেয়ে উল্লেযোগ্য বিষয় হল বঙ্কিচন্দ্রের “রাধারাণী” উপন্যাসে মাহেশের রথের উল্লেখ আছে। বহু ঋষি মনীষীদের পদধূলি মাহেশে পড়েছে। তার মধ্যে উল্লেখ্যযোগ্য রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর। শোনা যায় রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর একবার মাহেশে রথযাত্রা দেখতে এসেছিলেন।

- Advertisment -

জনপ্রিয়

সরস্বতী নাট্যোৎসবের দ্বিতীয় পর্যায় অনুষ্ঠিত হতে চলেছে উত্তর চব্বিশ পরগনার অশোকনগরে

করোনা প্রকোপ খানিক শান্ত হতে না হতেই এই শীতের মরসুমে নাট্যপিপাসু দর্শকদের কাছে সবচেয়ে আনন্দের বিষয় কলকাতা সহ পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন প্রান্তে অনুষ্ঠিত হওয়া নাট্যোৎসবে...

“পাই” এর উৎসবে মাতলো কলকাতা। ২০ থেকে ২৬ শে জানুয়ারি পর্যন্ত চললো সেলিব্রেশন

কলকাতায় গল্ফগ্রীনে পুরো সপ্তাহ ধরে চললো "পাইয়ের উৎসব"। "দ্য পাই হাউসের" পক্ষ থেকে আন্তর্জাতিক পাই ডে উপলক্ষে ২০ থেকে ২৬ শে জানুয়ারি সেলিব্রেট করা...

কলকাতা প্রেক্ষাপট এর নাট্য – পার্বণ

ভারতীয় সংকৃতির পীঠস্থান আমাদের এই বাংলা । নাট্যচর্চা বাংলার তথা ভারতীয় সংস্কৃতির এক অভূতপূর্ব ধারাকে বহন করে নিয়ে চলেছে প্রাচীনকাল থেকেই । বরাবরই বিভিন্ন...

সুযোগ পেলে আমিও স্বাস্থ্য সাথীর কার্ড করাবো” বললেন দিলীপ ঘোষ

মাননীয় মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উন্নয়নে এবার সামিল রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। স্বাস্থ্য সাথীর কার্ড করেছেন দিলীপ ঘোষ ও তার পরিবার এমনই দাবি করলেন বীরভূম...