Home জেলার খবর ৩৭ জন পড়ুয়াকে নিয়ে শুরু হওয়া শ্রীরামপুর কলেজ ‘গ্রিন কলেজ’ উপাধি পেতে...

৩৭ জন পড়ুয়াকে নিয়ে শুরু হওয়া শ্রীরামপুর কলেজ ‘গ্রিন কলেজ’ উপাধি পেতে চলেছে…

৩৭ জন পড়ুয়াকে নিয়ে শুরু হওয়া শ্রীরামপুর কলেজের
অল্ডিন হাউজ বর্তমানে ধ্বংসস্তূপে পরিনত

১৮১৮ সালে শুরু হওয়া শ্রীরামপুর কলেজের বয়স দ্বিশতবর্ষেরও বেশি। শ্রীরামপুর কলেজ শুরু হয়েছিল ১৮১৮ সালে ৩৭ জন পড়ুয়াকে নিয়ে, শহরের জলকল এলাকায় জনৈক রেভারেন্ড অল্ডিন সাহেবের বাড়িতে। তার চার বছর পর ১৮২২ সালে শ্রীরামপুর কলেজ স্থানান্তরিত হয় বর্তমান ভবনে।



তবে কলেজ শুরুর পথচলা যেই অল্ডিন হাউজে বর্তমানে তা ধ্বংসস্তূপে পরিনত । কলেজের দ্বিশতবর্ষের আলো পৌছায় না সেখানে, চারিদিকে ঘন জঙ্গল, সাপের বাসা ছড়িয়ে আছে সেই স্থানে।

তবে ২০১৮ সালে কলেজের দ্বিশতবর্ষ উপলক্ষে পুরনো ভবনের সংস্কারের দাবি তোলা হয়।



শ্রীরামপুর কলেজের অন্যতম তিনজন প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন উইলিয়াম কেরি, জ্যোশুয়া মার্শম্যান ও উইলিয়াম ওয়ার্ড
উইলিয়াম কেরির কথা সকলের জানলেও জ্যোশুয়া মার্শম্যানউইলিয়াম ওয়ার্ড র কথা প্রচারিত হয়নি তেমনভাবে, তাই তাঁদের প্রতিকৃতি স্থাপনের দাবিও তোলা হয়েছিল সেই সভায়।

শহরের মানুষ থেকে শিক্ষাব্রতী সকলেই চায় বিভিন্ন বিষয়ের উপর পুরোপুরিভাবে স্নাতকোত্তর শিক্ষাক্রম শ্রীরামপুর কলেজে শুরু হোক। সেই সময় ক্যাম্পাসের পরিসর বৃদ্ধির জন্য আবেদনের প্রস্তাবও রাখা হয়।



শ্রীরামপুর কলেজ এর পাশাপাশি উঠে আসে
শ্রীরামপুর মিশন প্রেস এর কথা। হরফ শিল্পে যেই শহর বিপ্লব শুরু হয়েছিল তার প্রথম উদ্যোগ শ্রীরামপুরেই। পঞ্চানন কর্মকার এবং তাঁর উত্তরসূরিরা শ্রীরামপুরের হরফশিল্পকে এক অন্য মাত্রা দিয়েছিল।



শ্রীরামপুর কলেজ কে ‘গ্রিন কলেজ’ তৈরির জন্য একাধিক পরিকল্পনা নিয়ে সেই অনুযায়ী কাজও চলছে।

- Advertisment -

জনপ্রিয়

“ময়ূরপঙ্খীর” তরফ থেকে দিনমজুর ও রিক্সা চালকদের জন্য ঈদ উপলক্ষে কিছু উপহার প্রদান করা হলো

"ময়ূরপঙ্খী শিশু কিশোর সমাজ কল্যাণ সংস্থা" র পক্ষ থেকে এবং গ্লোবাল স্পা ফাউন্ডেশনের সহযোগিতায় ঢাকার মিরপুরের বিভিন্ন এলাকায় অসহায়, বয়স্ক, দিনমজুর ও রিক্সা চালকদের...

মায়ের মৃত্যুদিনে পথ পশুদের কল্যাণার্থে পারমিতা মুন্সী ভট্টাচার্য এর পরিচালনায় হয়ে গেলো ‘বর্ষ বরণে বিবিয়ানা’

পথপশুদের কল্যাণার্থে শিবানী মুন্সী প্রোডাকশনের 'বর্ষবরণে বিবিয়ানা' শীর্ষক বাংলা নববর্ষের ক্যালেন্ডার প্রকাশ হয়ে গেল। এই ক্যালেন্ডার থেকে সংগৃহীত অর্থ খরচ করা হবে পথ পশুদের...

কি করলে আপনাকে বা আপনার পরিবারকে ছুঁতে পারবেনা করোনা

বর্তমানের ভয়াবহ পরিস্থিতি থেকে নিস্তার পাওয়াটাই এখন সকল মানুষের একমাত্র লক্ষ্য. কিন্তু কিভাবে পাবো এই ভয়ানক কোবিড ১৯ এর হাত থেকে মুক্তি? কোবিড ১৯ ভাইরাস...

অতিমারির মধ্যেও প্রকৃতির আরো কাছে ফিরে যাচ্ছেন জয়া আহসান..

করোনা নামক ভয়ঙ্কর ভাইরাস বাংলাদেশেও ছড়িয়ে পড়েছে। সকলকে নববর্ষের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন বাংলাদেশের জনপ্রিয় অভিনেত্রী জয়া আহসান। কিন্তু শুভেচ্ছা জানাতে গিয়ে তার কণ্ঠে বিষন্নতা রয়েছে। চারিদিকে...