Home সাক্ষাৎকার "খারাপ সময় বলে কিছু হয় না, একদিন সব ঠিক হয়ে যাবে" |...

“খারাপ সময় বলে কিছু হয় না, একদিন সব ঠিক হয়ে যাবে” | সাক্ষাৎকারে সোহিনী সাহা

বিভিন্ন ভাষায় অজস্র জিঙ্গেলস। “টাপুর টুপুর“, “কাছে আয় সই“, “বিন্দি”, “খোকাবাবু“, “জল নুপুর“, “আঁচল“, “বেনে বৌ” এর মত এক ঝাঁক মেগা সিরিয়ালে আমরা শুনতে পেয়েছি যার গান। আজকের আমাদের আড্ডায় সেই প্রখ্যাত সঙ্গীত শিল্পী সোহিনী সাহা’র মুখোমুখী আমি রাজেশ।

প্রশ্ন: একজন সাধারণ মানুষ থেকে প্রফেশনাল সিঙ্গার হয়ে ওঠার গল্পটা কি?

সোহিনী: আমি ছোটবেলা থেকেই গান বাজনার সাথে যুক্ত। কারণ গান বাজনার চর্চা আমাদের পরিবারে বংশপরম্পরায় চলে আসছে। আমার পিসিরা, দিদি গানের সাথে যুক্ত, আমার বোন অভিনয় করে, এবং আমার বাবাও ইন্ডাস্ট্রির সাথে যুক্ত আছেন। বলতে পারো আমার পরিবারটা পুরো ইন্ডাস্ট্রির সাথেই যুক্ত। তাই কোনো দিন আলাদা করে বাড়ির সবার বিরুদ্ধে গিয়ে যে গান করতে হবে বা স্ট্রাগল করতে হবে সেরকম কোনো সমস্যার সম্মুখীন আমাকে হতে হয়নি। ছোটবেলা থেকেই গান রক্তে মিশে আছে সেই ভাবেই এগিয়ে চলা এবং ইন্ডাস্ট্রিতে আসা।

প্রশ্ন: জীবনের কঠিন সময়গুলোয় আপনি কি ভাবে নিজেকে Motivate করেন?

সোহিনী: জীবনের কঠিন সময় গুলোতে আমি অন্যদের দেখে motivate হই। কারণ আমি মনে করি আমার থেকেও খারাপ পরিস্তিতির মধ্যে অনেকে রয়েছে, তারাও সেই পরিস্থিতিটার সাথে লড়াই করছে, আমাকেও করতে হবে, হার মানলে চলবে না। এই পজিটিভ মনোভাবটা রাখি এবং এই মানসিকতাটাই সবসময় আমাকে ভীষণ ভাবে motivate করে। তাছাড়া আমি প্রতিদিন মেডিটেশন করি। তাই মেডিটেশন করে এটুকু বুঝতে পেরেছি “খারাপ সময় বলে কিছু হয় না, এটা একটা খারাপ পরিস্তিতি সেটা একদিন ঠিক কেটে যাবে”।

প্রশ্ন: আপনার hobbies কি?/ গান ছাড়া অবসর সময়ে আপনি আর কি কি করতে পছন্দ করেন?

সোহিনী: আমি রান্না করতে ভীষণ ভালোবাসি। এছাড়া গান শোনা, গল্প করা, ওয়েবসিরিজ এবং মুভি দেখতেও বেশ ভালো লাগে।

প্রশ্ন: আপনার জীবনে আপনি কাকে আদর্শ বলে মনে করেন?

সোহিনী: আমি আমার জীবনে আদর্শ বলে মনে করি আমার বাবাকে। এখানে আমি একটা কথা বলতে চাই যে আমার দুই বাবা। একজন আমার বায়োলজিক্যাল ফাদার “কুন্দন সাহা” আর যিনি আমাকে নিজের মেয়ে বলে মনে করেন এবং যাকে আমিও নিজের বাবার আসনে বসিয়েছি তিনি হলেন “নচিকেতা চক্রবর্তী”। তিনি সবসময় বলেন তার দুই মেয়ে আমি আর ধানশিরি। এই দুজনই আমার জীবনের আদর্শ।

প্রশ্ন: আপনার এগিয়ে চলার পিছনে কোন কোন মানুষের অবদান আছে বলে আপনি মনে করেন?

সোহিনী: অবশ্যই আমার মা বাবা। তাদের আশীর্বাদ, ভালোবাসা ছাড়া আমি এতদূর এগোতে পারতাম না। আর যারা আমার গান ভালোবাসেন, যারা আমার খুব কাছের বন্ধু, যারা আমার ভালো চায়, প্রতিনিয়ত আমায় ইনস্পায়ার করে, আমার জীবনে এগিয়ে চলার পথে তাদের অবদানও অনস্বীকার্য।

প্রশ্ন: এই বর্তমান পরিস্তিতি আপনার প্রফেশনাল ক্যারিয়ারে কতখানি প্রভাব ফেলেছে?

সোহিনী: এখন বর্তমান পরিস্তিতি সত্যি খুব খারাপ। যার প্রভাব প্রত্যেকটা স্তরের মানুষের জীবনে পরেছে। সঙ্গীত জগতের ওপরও যার প্রভাব অনেকটা। আমি যদিও খুব একটা শো করি না কিন্তু তাও এই লকডাউনের জন্য অনেক কাজ পেন্ডিং পরে আছে। তবে আমাদের থেমে থাকলে চলবে না এগিয়ে যেতে হবে। খারাপ সময়টাতো আর চিরস্থায়ী নয়। আশাকরি এই খারাপ সময়টা খুব তাড়াতাড়ি আমরা কাটিয়ে উঠবো।

প্রশ্ন: সবশেষে আপনি আপনার শ্রোতাদের উদ্দেশ্যে কি বলতে চান?

সোহিনী: তাদের আমি একটা কথাই বলতে চাই যে, আরো বেশি বেশি করে বাংলা গান শুনুন, বাংলা গানকে ভালোবাসুন। তাবলে অন্য গান যে শুনবেন না এমনও নয়। সবরকম গানই শুনুন। কিন্তু বেশি করে বাংলা গানকে এগিয়ে নিয়ে যেতে সাপোর্ট করুন। ভালো থাকুন, সুস্থ থাকুন, আর এই বর্তমান পরিস্থিতিতে চেষ্টা করুন খুব প্রয়োজন ছাড়া বাড়ি থেকে না বেড়োনোর।

সবশেষে এবিও পত্রিকা পক্ষ থেকে সোহিনী কে জানাই অসংখ্য ধন্যবাদ। তার মহামূল্যবান সময় থেকে আমাদের কিছুটা সময় দেওয়ার জন্য।
আমাদের তরফ থেকে আপনার আগামী দিনের জন্য অনেক শুভেচ্ছা রইল। আপনি ও আপনার পরিবারের সকলে ভালো থাকুন, সুস্থ থাকুন, এবং সুরক্ষিত থাকুন এই কামনাই করিI

সোহিনী সাহা ফেসবুক প্রোফাইল: https://www.facebook.com/sohinisahaaa

আমাদের ফেসবুক পেজটি লাইক করুন: https://facebook.com/abopatrika/

এই টেলিফোনিক ইন্টারভিউ টির লিখিত রূপ দিতে সাহায্য করেছে:  Susmita Sen

 

- Advertisment -

জনপ্রিয়

সরস্বতী নাট্যোৎসবের দ্বিতীয় পর্যায় অনুষ্ঠিত হতে চলেছে উত্তর চব্বিশ পরগনার অশোকনগরে

করোনা প্রকোপ খানিক শান্ত হতে না হতেই এই শীতের মরসুমে নাট্যপিপাসু দর্শকদের কাছে সবচেয়ে আনন্দের বিষয় কলকাতা সহ পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন প্রান্তে অনুষ্ঠিত হওয়া নাট্যোৎসবে...

“পাই” এর উৎসবে মাতলো কলকাতা। ২০ থেকে ২৬ শে জানুয়ারি পর্যন্ত চললো সেলিব্রেশন

কলকাতায় গল্ফগ্রীনে পুরো সপ্তাহ ধরে চললো "পাইয়ের উৎসব"। "দ্য পাই হাউসের" পক্ষ থেকে আন্তর্জাতিক পাই ডে উপলক্ষে ২০ থেকে ২৬ শে জানুয়ারি সেলিব্রেট করা...

কলকাতা প্রেক্ষাপট এর নাট্য – পার্বণ

ভারতীয় সংকৃতির পীঠস্থান আমাদের এই বাংলা । নাট্যচর্চা বাংলার তথা ভারতীয় সংস্কৃতির এক অভূতপূর্ব ধারাকে বহন করে নিয়ে চলেছে প্রাচীনকাল থেকেই । বরাবরই বিভিন্ন...

সুযোগ পেলে আমিও স্বাস্থ্য সাথীর কার্ড করাবো” বললেন দিলীপ ঘোষ

মাননীয় মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উন্নয়নে এবার সামিল রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। স্বাস্থ্য সাথীর কার্ড করেছেন দিলীপ ঘোষ ও তার পরিবার এমনই দাবি করলেন বীরভূম...