Home দেশ পশ্চিমবঙ্গে না খেয়ে মরতে চলেছে মানুষ। কারণ কিন্তু কোরোনা নয়

পশ্চিমবঙ্গে না খেয়ে মরতে চলেছে মানুষ। কারণ কিন্তু কোরোনা নয়

ঝাড়খণ্ড অব্দি পৌঁছে গেলো পঙ্গপাল, এবার কি ধেয়ে আসছে পশ্চিমবঙ্গের দিকে?

একদিকে করোনার আতঙ্ক এবং তার মধ্যেই আমফানের আক্রমণ, পশ্চিমবঙ্গের অবস্থা এখন একেবারেই ভয়াবহ। এর মধ্যে কি আরও এক বিপর্যয় হানা দিতে চলেছে রাজ্যে? আমফানের তাণ্ডবে উপকূল অঞ্চলের কয়েক হাজার একর কৃষিজমির ক্ষতি হয়ে গেছে। কিন্তু দক্ষিণবঙ্গের বাকি জেলাগুলির ফসল কি এখন নিরাপদে আছে? চিন্তায় বাংলার কৃষকরা, সাথে পরিবেশবিদরাও। কারণ আর কিছুই না, রাজস্থান থেকে শুরু করে উত্তরপ্রদেশ, বিহার পেরিয়ে পঙ্গপালের দল এখন ঝাড়খণ্ডে উপস্থিত। অতএব পরবর্তী লক্ষ্য যে পশ্চিমবঙ্গ, সেটা সহজেই অনুমান করা যাচ্ছে।

যেকোনো কৃষকের কাছে সবচেয়ে বড় ভয়ের কারণ এই পঙ্গপাল নামক পতঙ্গটি। এরা হানা দেয় দল বেঁধে। আর একটি দলে থাকে লক্ষাধিক পতঙ্গ। দেখতে দেখতে এরা ফসলঘেরা মাঠ একেবারে নিঃস্ব করে ফেলে। অবশ্য ১৯৬১ সালের পর পশ্চিমবঙ্গের স্মৃতিতে আর এমন ঘটনা দেখা যায় নি। তাই আগন্তুক পতঙ্গদের ঠেকাতে চিন্তিত প্রশাসনও। আর গতমাসে আফ্রিকার পশ্চিমে হানা দেওয়া এই নতুন প্রজাতির পঙ্গপালের দল আগের থেকে অনেক বেশি ভয়ঙ্কর এই পঙ্গপাল। একমাসের মধ্যেই আফ্রিকা পেরিয়ে বেলুচিস্তান হয়ে এই বাহিনী ঢুকে পড়েছে ভারতবর্ষে। রাজস্থান এবং উত্তর ভারতের কৃষিজমির অবস্থা খুবই শোচনীয়।

ভাইরাস ও ঘূর্ণিঝড়ের মিলিত তাণ্ডবে প্রায় বিপর্যস্ত বাংলার অর্থনীতি। সামাজিক অবস্থাও এমন দুর্বল যে পতঙ্গ রুখতে উপযুক্ত প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা এই মুহূর্তে মুশকিল। স্বাভাবিকভাবেই প্রশাসনের কপালেও চিন্তার ভাঁজ পড়েছে । অন্যদিকে পতঙ্গ বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন, একেকটি পঙ্গপাল ১০০ সন্তানের জন্ম দেয়। তাই একশো থেকে হাজার এবং তারপর লক্ষ্যে পৌঁছে যেতে তাদের খুবই কম সময় লাগে। আর একবার চাষের জমি ঘিরে ফেললে তাদের প্রতিরোধ করা খুবই মুশকিল। উপায় শুধু প্রচুর পরিমাণে কীটনাশক এবং অ্যানাস্থেটিক ওষুধ স্প্রে করা। তবে এতে ফসলেরও যথেষ্ট ক্ষতি হতে পারে। তাই প্রথমেই বিশেষজ্ঞরা রাসায়নিক ব্যবস্থা না নিয়ে যান্ত্রিক পদ্ধতির উপরেই আস্থা রাখতে চাইছেন।

- Advertisment -

জনপ্রিয়

সরস্বতী নাট্যোৎসবের দ্বিতীয় পর্যায় অনুষ্ঠিত হতে চলেছে উত্তর চব্বিশ পরগনার অশোকনগরে

করোনা প্রকোপ খানিক শান্ত হতে না হতেই এই শীতের মরসুমে নাট্যপিপাসু দর্শকদের কাছে সবচেয়ে আনন্দের বিষয় কলকাতা সহ পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন প্রান্তে অনুষ্ঠিত হওয়া নাট্যোৎসবে...

“পাই” এর উৎসবে মাতলো কলকাতা। ২০ থেকে ২৬ শে জানুয়ারি পর্যন্ত চললো সেলিব্রেশন

কলকাতায় গল্ফগ্রীনে পুরো সপ্তাহ ধরে চললো "পাইয়ের উৎসব"। "দ্য পাই হাউসের" পক্ষ থেকে আন্তর্জাতিক পাই ডে উপলক্ষে ২০ থেকে ২৬ শে জানুয়ারি সেলিব্রেট করা...

কলকাতা প্রেক্ষাপট এর নাট্য – পার্বণ

ভারতীয় সংকৃতির পীঠস্থান আমাদের এই বাংলা । নাট্যচর্চা বাংলার তথা ভারতীয় সংস্কৃতির এক অভূতপূর্ব ধারাকে বহন করে নিয়ে চলেছে প্রাচীনকাল থেকেই । বরাবরই বিভিন্ন...

সুযোগ পেলে আমিও স্বাস্থ্য সাথীর কার্ড করাবো” বললেন দিলীপ ঘোষ

মাননীয় মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উন্নয়নে এবার সামিল রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। স্বাস্থ্য সাথীর কার্ড করেছেন দিলীপ ঘোষ ও তার পরিবার এমনই দাবি করলেন বীরভূম...