Home সাক্ষাৎকার "একটাই অনুরোধ নেপটিজমটা বন্ধ করা হোক" সাক্ষাৎকারে KD...

“একটাই অনুরোধ নেপটিজমটা বন্ধ করা হোক” সাক্ষাৎকারে KD…

গান শুনতে ভালোবাসে না এমন মানুষ হয়তো এই জগতে নেই। খুব সুন্দর একটি মন ছুঁয়ে যাওয়া গানের পিছনে গায়ক বা গায়িকা ছাড়াও লুকিয়ে থাকে বেশ কিছু মানুষের অক্লান্ত পরিশ্রম। এমনই একজন মানুষ যে বছরের পর বছর ধরে অত্যন্ত প্রযুক্তিগত দক্ষতা ও দূরদর্শিতার মাধ্যমে অজস্র মন ছুঁয়ে যাওয়া গান মানুষকে উপহার দিয়ে চলেছে। আজকে আমাদের আড্ডায় বাংলার সেই বিখ্যাত মিউজিক প্রডিউসার কৌস্তব দত্ত‘র (KD) মুখোমুখি আমি রাজেশ

প্রশ্ন: কি ভাবে মিউজিকের প্রতি ভালোবাসা গড়ে উঠলো?

কৌস্তব: মিউজিকের প্রতি ভালোবাসা আমার ছোটবেলা থেকেই। আমার বাবার খুব ইচ্ছা ছিল মিউজিক নিয়ে কিছু করি সেই কারণে বাবার সাপোর্ট প্রথম থেকেই পেয়েছি। আমি প্রথম পন্ডিত ভি বালসারা ও পন্ডিত অজিত ঘোষের কাছে পিয়ানো শেখা শুরু করি। তারপর বহু ব্যান্ড ও অর্কেস্ট্রার গ্রুপে কিবোর্ডিস্ট হিসেবে কাজ করেছি। এছাড়া কলকাতায় মিউজিক রুম স্টুডিওতে মিউজিক আরেঞ্জমেন্ট নিয়ে কাজ শুরু। এরপর অফিসিয়ালি মিউজিক ইন্ডাস্ট্রিতে আসা মিউজিক ডিরেক্টর দেব সেনের হাত ধরে, এবং আরো মিউজিক ডিরেক্টরদের সাথে কাজ করেছি যেমন লয়দীপ, ইন্দ্রনীল বহু স্বনামধন্য ব্যাক্তিদের সাথে। তো এই ভাবেই আমার মিউজিকের প্রতি ভালোবাসা বেড়ে চলেছে।

প্রশ্ন: মিউজিক কে প্রফেশন হিসেবে বেছে নেবার কারণ কি?

কৌস্তব: ছোটবেলা থেকেই মিউজিকের প্রতি একটা আলাদা টান ছিল। কিন্তু মিউজিক কে নিজের প্রফেশন করবো সেটা তখন ভাবিনি। যখন মিউজিকটা শেখা শুরু করি তারপর যত সময় এগোতে থাকে তত আমার মিউজিকেরকৌস্তব প্রতি একটা আলাদাই ভালোবাসা জন্মাতে থাকে। আর যখন সফলতা পেতে শুরু করি তখন বুঝতে পারি যে “মিউজিক ছাড়া আমার দ্বারা অন্য কিছু হবে না”।😀

প্রশ্ন: কৌস্তব থেকে KD হবার পেছনে কি কোনো secret আছে?

কৌস্তব: এই প্রশ্নটা সম্মুখীন আমি বহুবার হয়েছি কিন্তু আমি তখনও একই কথা বলেছি যা আজও বলবো সেটা হলো ” না কৌস্তব থেকে KD হবার পেছনে কোনো রহস্য নেই”। আমার প্রথম সিনেমার কাজে মিউজিক ডিরেক্টর মারফত “KD” নামটা শর্ট ফর্মে যাওয়ার পর থেকেই এই নামটা প্রচলিত হয়ে যায়।

প্রশ্ন: মিউজিক বাদে অবসর সময়ে কি করতে ভালোবাসো?

কৌস্তব: আমি ছবি আঁকতে খুব ভালোবাসি। এছাড়া গান শুনি, মাঝে মধ্যে শর্ট মিউজিক্যাল ভিডিও বানাই। আর একটা জিনিস হলো প্রেমটা আমার জীবনে খুবই গুরুত্বপূর্ণ। তাই কাজের বাইরে অবসর সময় যখনই পাই তখন প্রিয় মানুষটাকে সময় দি.. আমার জীবনের একটা গুরুত্বপূর্ণ মানুষ আমার girlfriend “অর্পিতা“। যখন আমার কাছে কিছুই ছিল না, ইন্ডাস্ট্রিতে পা রাখিনি তখন থেকেই সে আমাকে ভীষণ ভেবে সাপোর্ট করেছে, এখনও করছে। তাই আমার জীবনে অর্পিতার ভূমিকা খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

 

প্রশ্ন: তোমার এগিয়ে চলার পথে অনুপ্রেরণা কার থেকে পাওয়া?

কৌস্তব: আমার চলার পথের অনুপ্রেরণা আমার বাবা। তারপর আমার শিক্ষাগুরু যাদের আশির্বাদে আজ আমি এতদূর পৌঁছতে পেরেছি। আর একটা জিনিস আমার মধ্যে আছে “আমি কখনো হারতে শিখিনি, তাই অনুপ্রেরণা হিসেবে আমি আমার সততাকে বিশেষ প্রাধান্য দি। তাছাড়া এই বিশ্বে অনেক স্বনামধন্য সঙ্গীত শিল্পীরা আছেন তাদের কথা শুনে, তাদের কাজ দেখে প্রতিনিয়ত অনুপ্রেরিত হতে থাকি।

প্রশ্ন: এই দীর্ঘ লকডাউন আর মহামারীর প্রভাব মিউজিক ইন্ডাস্ট্রির ওপর কতটা পরেছে বলে তুমি মনে করো?

কৌস্তব: হ্যাঁ সত্যি খুব কঠিন পরিস্তিতির মধ্যে দিয়ে সকলে চলছে, মিউজিক ইন্ডাস্ট্রিও যার ব্যতিক্রম নয়। অনেক ভালো ভালো শিল্পীরা আজ ঘরে বসে আছে, কিন্তু আমি মনে করি প্রতিভা কখনও পিছিয়ে পরে না, বা প্রতিভাকে কখনো আটকে রাখাও যায় না। প্রতিভা যেমন ঠিক সময় সকলের সামনে উঠে আসে ঠিক তেমনই মিউজিকওI একটাই অনুরোধ নেপটিজমটা বন্ধ করা হোকইন্ডাস্ট্রি আবার উঠে দাঁড়াবে।

 

প্রশ্ন: তোমার কি মনে হয় এই মিউজিক ইন্ডাস্ট্রিও কি নেপোটিজিমের স্বীকার?

কৌস্তব: সত্যি কথা বলতে 50% হ্যাঁ, 50% না। বলতে গেলে আমিও কিছুটা নেপোটিজিমের স্বীকার। সেক্ষেত্রে প্রথম দিকে কিছুটা অসুবিধা হয়েছিল কিন্তু এখন ব্যাপার গুলো চোখের সামনে দেখলেও এড়িয়ে যেতে হয়, কারণ সবসময় সবকিছু বলা সম্ভব নয়I তাই একটাই অনুরোধ নেপটিজমটা বন্ধ করা হোক, যার মধ্যে প্রতিভা আছে তাকে সকলের সামনে তুলে ধরা হোক।

সবশেষে এবিও পত্রিকা পক্ষ থেকে কৌস্তব কে জানাই অসংখ্য ধন্যবাদ। তার মহামূল্যবান সময় থেকে আমাদের কিছুটা সময় দেওয়ার জন্য।
আমাদের তরফ থেকে আপনার আগামী দিনের জন্য অনেক শুভেচ্ছা রইল। আপনি ও আপনার পরিবারের সকলে ভালো থাকুন, সুস্থ থাকুন, এবং সুরক্ষিত থাকুন এই কামনাই করিI

এই টেলিফোনিক ইন্টারভিউ টির লিখিত রূপ দিতে সাহায্য করেছে:  Susmita Sen

আমাদের ফেসবুক পেজটি লাইক করুন: https://facebook.com/abopatrika/

 

 

 

- Advertisment -

জনপ্রিয়

সরস্বতী নাট্যোৎসবের দ্বিতীয় পর্যায় অনুষ্ঠিত হতে চলেছে উত্তর চব্বিশ পরগনার অশোকনগরে

করোনা প্রকোপ খানিক শান্ত হতে না হতেই এই শীতের মরসুমে নাট্যপিপাসু দর্শকদের কাছে সবচেয়ে আনন্দের বিষয় কলকাতা সহ পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন প্রান্তে অনুষ্ঠিত হওয়া নাট্যোৎসবে...

“পাই” এর উৎসবে মাতলো কলকাতা। ২০ থেকে ২৬ শে জানুয়ারি পর্যন্ত চললো সেলিব্রেশন

কলকাতায় গল্ফগ্রীনে পুরো সপ্তাহ ধরে চললো "পাইয়ের উৎসব"। "দ্য পাই হাউসের" পক্ষ থেকে আন্তর্জাতিক পাই ডে উপলক্ষে ২০ থেকে ২৬ শে জানুয়ারি সেলিব্রেট করা...

কলকাতা প্রেক্ষাপট এর নাট্য – পার্বণ

ভারতীয় সংকৃতির পীঠস্থান আমাদের এই বাংলা । নাট্যচর্চা বাংলার তথা ভারতীয় সংস্কৃতির এক অভূতপূর্ব ধারাকে বহন করে নিয়ে চলেছে প্রাচীনকাল থেকেই । বরাবরই বিভিন্ন...

সুযোগ পেলে আমিও স্বাস্থ্য সাথীর কার্ড করাবো” বললেন দিলীপ ঘোষ

মাননীয় মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উন্নয়নে এবার সামিল রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। স্বাস্থ্য সাথীর কার্ড করেছেন দিলীপ ঘোষ ও তার পরিবার এমনই দাবি করলেন বীরভূম...