Home জেলার খবর তারকেশ্বরে অন্তর্গত হরিপালে জাগ্রত দেবী বিশালাক্ষী দেবী প্রতিষ্ঠা হল কিভাবে জেনে নিন...

তারকেশ্বরে অন্তর্গত হরিপালে জাগ্রত দেবী বিশালাক্ষী দেবী প্রতিষ্ঠা হল কিভাবে জেনে নিন…

বলদবাঁধের জাগ্রত দেবী বিশালাক্ষী দেবী প্রতিষ্ঠা হল কিভাবে জেনে নিন

প্রাচীন গ্রাম বলদবাঁধ যা পূর্বে
কৃষ্ণবল্লভপুর নামে পরিচিত ছিল, অবস্থিত হরিপাল থেকে মাত্র ৩কিমি দূরত্বে।

এই গ্রামের জাগ্রত দেবী বিশালাক্ষী। বিশালাক্ষী দেবীর পূজার জন্য বর্ধমান রাজ প্রতাপ চন্দ্র রায় দুই বিঘা পাঁচ কাঠা জমি দান করেছিলেন। পরবর্তীকালে শ্রীরামপুরের মুখোপাধ্যায় পরিবার বলদবাঁধের জমিদারি লাভ করে। তবে শুধু মুখোপাধ্যায় পরিবারই নয়, কিছুটা অংশের মালিকানা ছিল পানিশেওলার সারদাচরণ মিত্রের পরিবারের কাছেও।
পুরোনো পর্চায় বলদবাঁধ মৌজায় পত্তনীদার হিসেবে নাম ছিল বিভূতিভূষণ মুখোপাধ্যায়ের।

গ্রামের নাম পরিবর্তন হওয়ার পেছনে এই গ্রামে এক নাটকীয় লৌকিককথা প্রচলিত আছে। জনশ্রুতি অনুযায়ী জানা যায় একবার ডাকাতের একটি দল সোনাটিকরি গোয়ালপাড়া থেকে ১০৮টি গাভী ও ধানের বস্তা চুরি করে দক্ষিণের অরণ্যের দিকে চলে যান, ডাকাতদের চুরি করে প্রত্যেক গাভীর পৃষ্ঠে তারা তিনটি করে ধানের বস্তা রেখেছিল । সোনাটিকরির গোয়ালারা ধাওয়া করায় বাধ্য হয়ে গাভী নিয়ে নদী পার হয়ে ডাকাতরা কৃষ্ণবল্লভপুরের সাঁইবালা অরণ্যে প্রবেশ করে। সেখানে নদীর বাঁধের উপর দাঁড়িয়ে বিজন অরণ্যে ডাকাতরা দেখতে পান প্রদীপের শিখা।

তখন ডাকাত সর্দার গলায় গামছা জড়িয়ে দেবীর উদ্দেশ্যে বলেছিলেন তুমি যে দেবদেবী হও রক্ষা করো। ডাকাতের সর্দারের ডাকে সাড়া দেয় দেবী, দেবীর কৃপায় ভোরের আলোয় গোয়ালারা নদী পার হয়ে বাঁধের উপর এসে পৌঁছালে দেখতে পায় ডাকাতদের কাছে গাভী নেই, তাদের কাছে আছে বলদ। ফলে গোয়ালারা প্রমাণের করতে পারে না যে ডাকাতরা গাভী চুরি করেছে।

জানা গেছিল অরন্যে মৃৎনির্মিত বেদীর উপর সেই দীপশিখা প্রজ্জ্বলিত ছিল। অরণ্যের এক তান্ত্রিক সাধক দেবী বিশালাক্ষী পুজা করতেন ন হতেন। সেই স্থানে ডাকাত সর্দার কৃষ্ণবর্ণের শিলাখণ্ড অবয়বের দেবী বিশালক্ষীর একটি মৃৎ দেবালয় নির্মাণ করেন। বুদ্ধ পূর্ণিমা তিথিতে ছাগ বলি দিয়ে দেবীকে সেখানে প্রতিষ্ঠা করা হয়।
দেবীর কৃপায় গাই গাভী বলদে রুপান্তরিত হওয়ায় কৃষ্ণবল্লভপুর গ্রামের নাম পরিবর্তন করে হয় বলদবাঁধ।

ডাকাত দ্বারা পূজিতা দেবী বিশালাক্ষী পরবর্তীতে বলদবাঁধ গ্রমের দেবী হয়ে ওঠেন।

বর্ধমান রাজ প্রতাপচন্দ্র রায় ও মহারাজাধিরাজ মহতাবচাঁদ এর অর্থসাহায্যে দেবী বিশালাক্ষীর মন্দির এবং মূর্তি নির্মান হয়। মহতাবচাঁদ এই সময় প্রচুর অর্থ উপার্জন করেন। ঠিক তার পরপরই মুখোপাধ্যায় ও মিত্ররা লাভ করে বলদবাঁধের পত্তনী।

১৯৪৩ খ্রিস্টাব্দে বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গের সম্মতিতে ফাটল ধরে যাওয়া মৃৎনির্মিত দেবী মূর্তি ভেঙে ফেলা হয়। ভবানী রায় ও অমর বন্দ্যোপাধ্যায়দেবীমূর্তি ভাঙেন। ফাটল ধরা মৃন্ময়ী মূর্তি ভেঙে সমাধিস্থ করার এক বছর বাদে দেবীর নবকলেবর নির্মিত হয়।

১৯৫৭ খ্রিস্টাব্দে দেবী সিংহরায়ের পুত্র দীপক সিংহরায়ের অর্থসাহায্যে বলদবাঁধে বিশালাক্ষীদেবীর নতুন মন্দির নির্মাণ করা হয়।

- Advertisment -

জনপ্রিয়

রাতের রজনীগন্ধা || এ বি ও অরিজিনালস || কলমে- জয়িতা চক্রবর্তী

মেয়েটাকে এত রাতে বাগানে এভাবে একলা দাঁড়িয়ে থাকতে দেখে বেশ অবাক হলো নীল। হাসপাতালে আজ নীলের প্রথম দিন। রাত এখন প্রায় একটা। ফার্ষ্ট ফ্লোরে...

দর্শকের অপেক্ষার অবসান ঘটিয়ে অবশেষে মুক্তি পেলো হলো মেনি ২

আজ থেকে প্রায় সাত মাস আগে মুক্তি পেয়েছিলো হুলো মেনি এর প্রথম পর্ব। সেটা দেখার পর থেকেই দর্শক উৎসুক হয়ে বসেছিলো অপেক্ষায়. যে কবে...

চোরাই বাইক সহ গ্রেপ্তার দুই অভিযুক্ত

শিলিগুড়ি সহ আশেপাশের এলাকা গুলিতে বড় গাড়ি পাচারের সঙ্গে সঙ্গে সক্রিয় হয়ে উঠেছে বাইক পাচার চক্র । অভিযানে নেমে তিনটি চুরির বাইক সহ দুই...

জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে চা বাগানে সখী মেলা

মঙ্গলবার জলপাইগুড়ি জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে অঙ্গণওয়াড়ি কর্মীদের অংশ গ্রহণের মধ্যে দিয়ে ডেঙ্গুয়াঝাড় চা বাগানে অনুষ্ঠিত হল একদিনের সখী মেলা । এদিনের এই মেলার উধবোধন...