Home জেলার খবর ঐতিহ্যবাহী শেওড়াফুলি রাজবাড়ির দুর্গাপুজো ঠিক কেমন করে শুরু হল জেনে নিন...

ঐতিহ্যবাহী শেওড়াফুলি রাজবাড়ির দুর্গাপুজো ঠিক কেমন করে শুরু হল জেনে নিন…

হুগলি জেলার অন্যতম ঐতিহ্যবাহী পুজো গুলোর মধ্যে একটি হল শেওড়াফুলি রাজবাড়ির দুর্গাপুজো। প্রতিবছর কৃষ্ণ নবমী তিথি মেনে মায়ের প্রথম দিয়ে শুরু হয় দুর্গাপূজা। এবছর বোধনের ঘট ওঠে গত শুক্রবার দুপুর ১২ টা ১০ মিনিটে। করোনার কারণে আড়ম্বরপূর্ণ হবেনা এবারের পুজো চণ্ডীপাঠ এবং মন্ত্রোচ্চারণের মাধ্যমেই এবছর পুজোর সূচনা হয় রাজবাড়িতে৷



এই বংশের পুজো কিভাবে শুরু হল বলতে গেলে ফিরে যেতে হয় অতীতে, সেই ষোড়শ শতকের মাঝামাঝি সময়ে, যখন এই বংশের দ্বারকানাথ বসবাস শুরু করেন বর্ধমানের পাটুলিতে।


দ্বারকানাথের পৌত্রের পুত্র ছিলেন বাসুদেব, যিনি পৈত্রিক সম্পত্তি ভাগ হওয়ার পর জমিদারি তদারকির সুবিধা হবে বলে বসবাস করতে শুরু করেন শেওড়াফুলিতে। তিনি অস্থায়ী ভাবে বাস করলেও তার ছেলে মনোহর রায় স্থায়ী ভাবেই শেওড়াফুলিতে বসবাস শুরু করন যেই কারণে তাকে এই রাজবংশের প্রতিষ্ঠাতা ধরা হয়। ১৭৩৪ এ মনোহর দত্ত আটিসারা গ্রামে পুকুর খননের সময় পান স্বপ্নে দেখা দশভুজা।



প্রজা বৎসল জমিদারের জমিদারির অন্তর্ভুক্ত আটিসারা গ্রাম পরবর্তীকালে হুগলি জেলায় চলে আসলে তিনি প্রজাদের সুবিধার কথা ভেবে পুকুর খননের জন্য লোক পাঠালে স্বপ্নে মা সর্বমঙ্গলা দেবীর দেখা পান, মা তাকে জানান পুষ্করিণীর মাটির নীচেই তিনি আছে, এরপর প্রায় কুড়ি দিন খনন চালানোর পর সেখান থেকে পিতলের দুর্গামূর্তি উদ্ধার হয়। সেই দিন থেকেই শুরু হয় মায়ের নিত্যপুজো এবং দুর্গাপুজো। হুগলির এই রাজবাড়ির পুজোতে শুধু তাদের পারিবারিক সদস্যরাই নয় সমগ্র হুগলির মানুষ মা এর আগমনের আনন্দে মেতে ওঠে।

- Advertisment -

জনপ্রিয়

সরস্বতী নাট্যোৎসবের দ্বিতীয় পর্যায় অনুষ্ঠিত হতে চলেছে উত্তর চব্বিশ পরগনার অশোকনগরে

করোনা প্রকোপ খানিক শান্ত হতে না হতেই এই শীতের মরসুমে নাট্যপিপাসু দর্শকদের কাছে সবচেয়ে আনন্দের বিষয় কলকাতা সহ পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন প্রান্তে অনুষ্ঠিত হওয়া নাট্যোৎসবে...

“পাই” এর উৎসবে মাতলো কলকাতা। ২০ থেকে ২৬ শে জানুয়ারি পর্যন্ত চললো সেলিব্রেশন

কলকাতায় গল্ফগ্রীনে পুরো সপ্তাহ ধরে চললো "পাইয়ের উৎসব"। "দ্য পাই হাউসের" পক্ষ থেকে আন্তর্জাতিক পাই ডে উপলক্ষে ২০ থেকে ২৬ শে জানুয়ারি সেলিব্রেট করা...

কলকাতা প্রেক্ষাপট এর নাট্য – পার্বণ

ভারতীয় সংকৃতির পীঠস্থান আমাদের এই বাংলা । নাট্যচর্চা বাংলার তথা ভারতীয় সংস্কৃতির এক অভূতপূর্ব ধারাকে বহন করে নিয়ে চলেছে প্রাচীনকাল থেকেই । বরাবরই বিভিন্ন...

সুযোগ পেলে আমিও স্বাস্থ্য সাথীর কার্ড করাবো” বললেন দিলীপ ঘোষ

মাননীয় মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উন্নয়নে এবার সামিল রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। স্বাস্থ্য সাথীর কার্ড করেছেন দিলীপ ঘোষ ও তার পরিবার এমনই দাবি করলেন বীরভূম...