Home জেলার খবর বিশ্বযুদ্ধের সময় শ্রীরামপুরে ব্রিটিশদের দখলে থাকা বাড়িতে আজও করা হয় দুর্গাপূজা...

বিশ্বযুদ্ধের সময় শ্রীরামপুরে ব্রিটিশদের দখলে থাকা বাড়িতে আজও করা হয় দুর্গাপূজা…

কুন্ডুবাড়ির ১৩৬ বছরের প্রাচীন দুর্গাপুজো এবছর হবে ছোট করে, নিয়মরক্ষার পুজো

বন্ধ হয়ে হয়েও হল না, মা আসছেন শ্রীরামপুরের কুণ্ডু বাড়িতে। ১৩৬ তম বছরের প্রাচীন দুর্গাপুজো এবছর বন্ধ হতে গিয়েও পারিবারিক ঐতিহ্য মেনে নিয়মরক্ষার পুজোর জন্য প্রস্তুতি শুরু হয়ে গেছে শ্রীরামপুরের কুণ্ডু বাড়িতে।



শ্রীরামপুর স্টেশন সংলগ্ন গঙ্গার ধারে তিনশোর অধিক বয়সী কুন্ডু বাড়ি। বহু প্রাচীন এই বাড়িতে বয়সের ছাপ স্পষ্ট, ভাঙ্গা ইট কোথাও বেরিয়ে এসেছে তো কোথায় দেওয়ালের গায়ে শ্যাওলা। এই বাড়ির ঠাকুরদালানে দুর্গা পুজো শুরু হয় ১৮৮৫ সালে গোপাল কুণ্ডুর হাত ধরে।



দীর্ঘদিন ধরে এই পরিবারে মায়ের আরাধনা চলে আসছে, তবে মাঝে একবার পুজো বন্ধ ছিল। ১৯৪৩ সাল থেকে ১৯৪৭ সাল, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সেই সময়ে ব্রিটিশরা দখল করে নিয়েছিল কুণ্ডু বাড়ির।

কুন্ডুবাড়িতে পুজো শুরু হয় জন্মাষ্টমীর দিন কাঠামো পুজো দিয়ে। পুজো শুরু হয় পঞ্চমীতে
বাড়ি সংলগ্ন ঠাকুরদালানে,যা আগে খড়ের চাল দেওয়া থাকলেও পরে তা কংক্রিটের করা হয়।



এবছর করোনা আবহে কঠিন পরিস্থিতিতে এ বার পুজো হবে কি হবে না এই নিয়ে অনেক টানাপোড়েন চলে।তবে শেষ মুহুর্তে ঠিক হয় এবছরও পুজো হবে তবে একচালা ছোট প্রতিমায় হবে পুজো। দূর থেকে যেসব আত্মীয়রা আসেন তারা আসবে না, নৈবেদ্য দেওয়া হবে গোটা ফলে। এবছরের পুজো নিয়মরক্ষার । তাতে আনন্দের আমেজ, হই হুল্লোড় নেই, আছে শুধু প্রার্থনা, আবার স্বাভাবিক পরিবেশ, করোনামুক্ত পরিবেশের আশা। ভালো থাকার, সুস্থ থাকার প্রার্থনা।

- Advertisment -

জনপ্রিয়

সরস্বতী নাট্যোৎসবের দ্বিতীয় পর্যায় অনুষ্ঠিত হতে চলেছে উত্তর চব্বিশ পরগনার অশোকনগরে

করোনা প্রকোপ খানিক শান্ত হতে না হতেই এই শীতের মরসুমে নাট্যপিপাসু দর্শকদের কাছে সবচেয়ে আনন্দের বিষয় কলকাতা সহ পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন প্রান্তে অনুষ্ঠিত হওয়া নাট্যোৎসবে...

“পাই” এর উৎসবে মাতলো কলকাতা। ২০ থেকে ২৬ শে জানুয়ারি পর্যন্ত চললো সেলিব্রেশন

কলকাতায় গল্ফগ্রীনে পুরো সপ্তাহ ধরে চললো "পাইয়ের উৎসব"। "দ্য পাই হাউসের" পক্ষ থেকে আন্তর্জাতিক পাই ডে উপলক্ষে ২০ থেকে ২৬ শে জানুয়ারি সেলিব্রেট করা...

কলকাতা প্রেক্ষাপট এর নাট্য – পার্বণ

ভারতীয় সংকৃতির পীঠস্থান আমাদের এই বাংলা । নাট্যচর্চা বাংলার তথা ভারতীয় সংস্কৃতির এক অভূতপূর্ব ধারাকে বহন করে নিয়ে চলেছে প্রাচীনকাল থেকেই । বরাবরই বিভিন্ন...

সুযোগ পেলে আমিও স্বাস্থ্য সাথীর কার্ড করাবো” বললেন দিলীপ ঘোষ

মাননীয় মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উন্নয়নে এবার সামিল রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। স্বাস্থ্য সাথীর কার্ড করেছেন দিলীপ ঘোষ ও তার পরিবার এমনই দাবি করলেন বীরভূম...