Home ধর্মীয় রামের পর কর্নাটকে ২১৫ মিটার উচ্চতার হনুমান মন্দির!

রামের পর কর্নাটকে ২১৫ মিটার উচ্চতার হনুমান মন্দির!

রামের পর কর্নাটকে ২১৫ মিটার উচ্চতার হনুমান মন্দির!

বুধবার অযোধ‍্যায় ধূমধাম করে হয়ে গেল রাম মন্দিরে ভূমিপুজো। এবার সেই বিলাসবহুল মন্দিরের নির্মানের কাজ। রাম মন্দির গঠনকার্য নিয়ে রীতিমতো তুঙ্গে নেটদুনিয়া। তবে রামমন্দিরের রেশ কাটতে না কাটতেই কর্নাটকের হাম্পিতে তীর্থভূমি ট্রাস্টের তরফে তৈরী হল হনুমান মন্দির। রামের জন্মভূমির পাশাপাশি হাম্পিতেও নির্মান হতে চলেছে হনুমানের আকাশছোঁয়া মন্দির।

তবে রামের ভক্তদের আশ্বস্ত করে বলা হয়েছে, হনুমানের মন্দিরের উচ্চতা রামের মন্দিরের তুলনায় ৬ মিটার কম হবে। কারন ভক্তের মন্দির কখনই ভগবানের মন্দিরের তুলনায় উচু হয় না। কিন্তু কেমন হবে হনুমান মন্দির,? তীর্থভূমি ট্রাস্ট সুত্রে খবর, হাম্পিতে হনুমান মন্দির ২১৫ মিটারের হবে আর রামের মুর্তির উচ্চতা ২২১ মিটার হওয়ার কথা।

আরও জানা গেছে, এই হনুমান মুর্তি নির্মানে আনুমানিক সময় লাগবে ৬ বছর। আর এই আকাশছোঁয়া মুর্তি তৈরী হতে খরচ হবে প্রায় ১২০০ কোটি টাকা। তীর্থ ক্ষেত্র ট্রাস্টের সাধু সরস্বতী স্বামীর কথায়, ভগবান রামচন্দ্রের শ্বাশ্বত ভক্ত হনুমান মুর্তির উচ্চতা পরিকল্পনামাফিক ভাবে ৬ মিটার কম করা হবে।”

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, উত্তরপ্রদেশের ফৈজাবাদ জেলার বরহাটা গ্রামে গড়ে উঠবে ঐই বিশাল হনুমান মন্দির যার গঠন কার্য ইতিমধ্যে শুরু হয়ে গেছে। এই মুর্তি গড়তে প্রায় ৮৫ একর জমি লাগবে। আর প্রশাসন তরফ থেকে সেই নোটিশ দেওয়া হয়েছে। আর তারপর থেকেই ভিটে হারানোর প্রহর গুনছে। গ্রামে প্রায় ৩৫০ টি পরিবারের বাস তাদের প্রত‍্যেকের পেট চলে কৃষিকাজ করেই। তাই জমি হারালে ভবিষ্যৎ কী হবে জানে না তারা।

- Advertisment -

জনপ্রিয়

সরস্বতী নাট্যোৎসবের দ্বিতীয় পর্যায় অনুষ্ঠিত হতে চলেছে উত্তর চব্বিশ পরগনার অশোকনগরে

করোনা প্রকোপ খানিক শান্ত হতে না হতেই এই শীতের মরসুমে নাট্যপিপাসু দর্শকদের কাছে সবচেয়ে আনন্দের বিষয় কলকাতা সহ পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন প্রান্তে অনুষ্ঠিত হওয়া নাট্যোৎসবে...

“পাই” এর উৎসবে মাতলো কলকাতা। ২০ থেকে ২৬ শে জানুয়ারি পর্যন্ত চললো সেলিব্রেশন

কলকাতায় গল্ফগ্রীনে পুরো সপ্তাহ ধরে চললো "পাইয়ের উৎসব"। "দ্য পাই হাউসের" পক্ষ থেকে আন্তর্জাতিক পাই ডে উপলক্ষে ২০ থেকে ২৬ শে জানুয়ারি সেলিব্রেট করা...

কলকাতা প্রেক্ষাপট এর নাট্য – পার্বণ

ভারতীয় সংকৃতির পীঠস্থান আমাদের এই বাংলা । নাট্যচর্চা বাংলার তথা ভারতীয় সংস্কৃতির এক অভূতপূর্ব ধারাকে বহন করে নিয়ে চলেছে প্রাচীনকাল থেকেই । বরাবরই বিভিন্ন...

সুযোগ পেলে আমিও স্বাস্থ্য সাথীর কার্ড করাবো” বললেন দিলীপ ঘোষ

মাননীয় মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উন্নয়নে এবার সামিল রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। স্বাস্থ্য সাথীর কার্ড করেছেন দিলীপ ঘোষ ও তার পরিবার এমনই দাবি করলেন বীরভূম...